1. postmaster@deliveryforfun.com : deltonsun :
  2. gertrude@gameconsole.site : hiltonsoutherlan :
  3. carrington@miki8.xyz : imayfe2724819 :
  4. admin@zahidit.com : Publisher :
  5. nihal.sultanul@gmail.com : Jamuna Protidin : নিউজ এডিটর
জীবন বাঁচাতে সচেতন হই » Jamuna Protidin
বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১০:০০ পূর্বাহ্ন

জীবন বাঁচাতে সচেতন হই

প্রতিবেদকের নাম
  • প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০২০
  • ৪৪৬ বার পঠিত

মোখশেদুর রহমান পলাশঃ

করোনা নামক প্রাণঘাতী ভাইরাসটি আমাদের যতোটা না ভুগিয়েছে শিখিয়েছে তার চেয়ে বহুগুণ বেশি। অকোষী এক আণুবীক্ষণিক ভাইরাসের কাছে মুখ থুবড়ে পড়েছে আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞান। বড় বড় অট্টালিকা বানিয়েছি আমরা। কিন্তু উন্নত মনন আর সচেতনতার দিক থেকে সেই কুড়ে ঘরেই রয়ে গেছি। কথায় কথায় নিজেদের একবিংশ শতাব্দীর বিজ্ঞানমনস্ক আধুনিক মানুষ দাবি করতে তবুও ভুল করি না।

এ দেশে স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানার ব্যবহার শেখাতে ২০ বছর মীনা-কার্টুন দেখাতে হয়েছে। হাত ধোয়া, পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে শেখানোর জন্য ইউনেস্কো সহ বড় বড় আন্তর্জাতিক এনজিওগুলো যুগের পর যুগ কাজ করেছে এবং করছে। আমরা কতটুকু পরিবর্তন করতে পেরেছি নিজেদের?

২০২০ সালে এসে আমরা বুঝতে পেরেছি এ যুগে জন্ম নিয়েও পরে আছি কয়েক শতাব্দী আগে। আমাদের কাছে সস্তা বিনোদন ছাড়া বিজ্ঞানের আর কোন উপযোগিতা নেই। বুঝতে পেরেছি আধুনিক পোশাকের আড়ালে সেকেলে এক একটা মানুষ আমরা।

করোনার শুরুর দিক থেকেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অফিস আদালত ধীরে ধীরে বন্ধ করা শুরু হয়। বাংলাদেশের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলো করোনার সাথে যতটুকু যুদ্ধ করছে তার চেয়ে বেশি যুদ্ধ করছে অর্থনৈতিক বৈরিতার সাথে। লকডাউনে হাজার হাজার ছোট ও মাঝারি প্রতিষ্ঠান ধ্বংস হয়ে গেছে। আমরা বুঝতে পেরেছি প্রতিবছর সন্তোষজনক প্রবৃদ্ধি থাকলেও আমাদের অর্থনৈতিক ভিত্তি এতোটা মজবুত হয় নি এখনও।

করোনায় লাখ লাখ ছাত্রছাত্রী ঘরবন্দী হয়ে আছে। নিজেদের সক্রিয় রাখতে না পেরে ডিপ্রেশনে ভুগছে অনেকেই। এর থেকে আমরা বুঝতে পারলাম আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা পাঠ্যক্রমের বাইরে কিছু শেখাতে পারে নি। পাঠ্যবই এর জ্ঞান বাদ দিলে আমরা নির্বোধ মূর্খ ছাড়া কিচ্ছু না। ব্যতিক্রম অবশ্যই আছে। কিন্তু মোটের ওপর আমরা শিক্ষার্থীদের চিন্তাশীল আর সৃজনশীল বানাতে পারি নি। এর ভয়াবহ ফল দেখতে হবে আরও ২০-৩০ বছর পর।

এই মহামারী আমাদের সব দিক থেকে ভীষণভাবে ক্ষতি করেছে। কিন্তু একটু ইতিবাচকভাবে দেখলে অনেক কিছু শিখেছি আমি/আমরা। আমাদের দুর্বলতাগুলো স্পষ্ট হয়েছে এই দুর্যোগে। দূর্বল স্বাস্থ্যব্যবস্থা সহ কাঠামোগত অনেক দূর্বলতা সামনে এসেছে। সময় এসেছে নিজেদের পরিবর্তন করার। একা সচেতন হলেও যে বাঁচা যায় না তা এখন স্পষ্ট। সবাইকে নিয়ে সচেতন হতে হবে। আশেপাশের মানুষগুলো আমাদের সবার কাছেই খুব মূল্যবান। তাই চলুন জীবন বাঁচাতে সচেতন হই।

শিক্ষার্থীঃ গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

সংবাদটি শেয়ার করুন...

২ thoughts on "জীবন বাঁচাতে সচেতন হই"

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর...

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | যমুনাপ্রতিদিন.কম

Theme Customized BY LatestNews