1. postmaster@deliveryforfun.com : deltonsun :
  2. gertrude@gameconsole.site : hiltonsoutherlan :
  3. nelianjani34067@gmail.com : ignaciomounts7 :
  4. carrington@miki8.xyz : imayfe2724819 :
  5. admin@zahidit.com : Publisher :
  6. nihal.sultanul@gmail.com : Jamuna Protidin : নিউজ এডিটর
যাদুকাঁটা নদীতে কয়লা হাজারো শ্রমিকের কর্মসংস্থান » Jamuna Protidin
বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কেশবপুরে চারুপীঠ আর্ট স্কুলের উদ্যোগে ৬৮টি কম্বল বিতরণ কেশবপুরে বিশেষ অভিযানে বিভিন্ন মামলায় আটক ১১ রাসিক মেয়র লিটনের সাথে নব-নির্বাচিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদকের সৌজন্য সাক্ষাৎ বেলকুচিতে স্কুল ছাত্রীকে বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা করলেন ইউএনও! রাজাপুরে সাংবাদিক রহিম রেজার জন্মদিন পালন বেলকুচিতে স্কাউটসের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত চারঘাট থানার ওসির বিদায় ও নবাগত ওসির বরণ অনুষ্ঠান চাঁদাবাজির মামলায় আটক ঈশ্বরদী সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদককে অব্যাহতি রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের পাম্প হউজিং এর হাইড্রলিক টেস্ট সম্পন্ন কবিতাঃ মানুষ শকুন

যাদুকাঁটা নদীতে কয়লা হাজারো শ্রমিকের কর্মসংস্থান

আর.এ.নাসির,তাহিরপুর প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময়: রবিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ৫৯ বার পঠিত

নৌকা, কোদাল, বেলচা আর জাল নিয়ে যাদুকাটা নদীর তলদেশের বালু থেকে কয়লা আলাদা করেছে হাজার হাজার শ্রমজীবী শিশু, যুবক, নারী ও পুরুষ।

এ নদী থেকে প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কয়লা সংগ্রহ করেন শ্রমিকরা। একজন শ্রমিক প্রতিদিন দুই থেকে তিন বস্তা কয়লা সংগ্রহ করতে পারে, যার স্থানীয় বাজার দর একহাজার টাকা। আর এগুলো স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে সংসার চালায় যাদুকাটা নদীর পাড়ের শ্রমজীবী মানুষ।

এমন চিত্র দেখা গেছে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা সীমান্তের যাদুকাটা নদীর বারিকটিলা এলাকা থেকে ঢালারপাড় পর্যন্ত তিন কিলোমিটার এলাকায়।

এ নদীতে মেঘলা পাহাড়ি ঢলের সাথে পানিতে ভেসে আসা কয়লা কুড়িয়ে নদী তীরবর্তী মাহারাম, বড়গোপ, লাউড়েরগড়, ঢালারপাড়, বিন্নাকুলি, ঘাগড়া, মাটিকাটা, মানিগাঁও, লাকমা, সুন্দরপাহাড়ি, রাজাই চাঁনপুরসহ অর্ধশতাধিক গ্রামের প্রায় ২০/২৫ হাজার শ্রমিক জীবিকা নির্বাহ করছেন।

তবে এই নদী সংশ্লিষ্ট আরো হাজার হাজার শ্রমিক বালু ও পাথর উত্তোলনে সরকারি নিষেধাজ্ঞা থাকায় বেকার সময় পার করছে।

মোনোয়ারা খাতুন নামে এক শ্রমিক বলেন, গত আট/নয় মাস ধরে করোনাভাইরাসের কারণে কোনো কাজ নে। এর মধ্যে কয়েক দফা বন্যায় চরম দুর্ভোগে ছিলাম। যাদুকাটা নদীতে পাহাড়ি ঢলের পানিতে গুড়া কয়লা ভেসে আসায় খুব সকালে খাবার খেয়ে নৌকা, জাল, বেলচা ও কোদালসহ নদীতে চলে আসি। এখান থেকে কয়লা তুলে তা বিক্রি করে কোনোরকমে খেয়ে-পরে বেঁচে আছি।

শুধু তিনি নন এই নদীর পাড়ের হাজার হাজার নারী-পুরুষ এখন এই কাজ করছেন। কয়লা উত্তোলনের আগে তাদের দিন অনেক কষ্টে কেটেছে। এখন কাজের সুযোগ পাওয়ায় পরিবারের অভাব কিছুটা কেটেছে বলেও জানান এই নারী শ্রমিক।

প্রতিদিন একজন নারী ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা ও একজন পুরুষ ৮০০ থেকে ১০০০ টাকার কয়লা সংগ্রহ করতে পারে। আর শ্রমিকদের সংগ্রহ করা কয়লা কিনে বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করেন বলে জানান ব্যবসায়ী বিল্লাল মিয়া। তিনি বলেন, নদী থেকে কয়লা উত্তোলন করার ফলে ব্যবসায়ী-শ্রমিক উভয়ের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে।

তাহিরপুর উপজেলার ৪নং বড়দল উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ সভাপতি মোঃজামাল উদ্দিন জানান, করোনার পর এলাকার হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছিল। যাদুকাটা নদীতে কয়লা উত্তোলন করার ফলে ব্যাপকভাবে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হলেও এই নদীতে বালু ও পাথর উত্তোলন করতে না পারায় অনেক শ্রমিক ও ব্যবসায়ীরা দুর্ভোগে আছে।

সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ জানান, যাদুকাঁটা নদীতে মেঘালয় থেকে ভেসে আসা কয়লা তুলে শ্রমজীবী পরিবারের মানুষ বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। জীবিকা নির্বাহ করছে। এখানে যেন তারা সুশৃঙ্খলভাবে কাজ করতে পারে সেদিকে নজর রাখছে প্রশাসন।

সংবাদটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর...

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | যমুনাপ্রতিদিন.কম

Theme Customized BY LatestNews