যমুনা প্রতিদিন
ঢাকাবুধবার , ২৮ এপ্রিল ২০২১
  1. English
  2. অর্থ ও বাণিজ্য
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. খেলাধুলা
  6. গণমাধ্যম
  7. চাকরি
  8. ছবিঘর
  9. জাতীয়
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দেশজুড়ে
  13. ধর্ম
  14. নারী ও শিশু
  15. প্রবাসের কথা

আটক গাঁজা চুরি করে ব্যবসা, পাবনা সদর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক ওসিম জেল হাজতে

রুহুল আমীন খন্দকার, স্টাফ রিপোর্টার
এপ্রিল ২৮, ২০২১ ২:৩১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

পাবনা সদর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে মাদকবিরোধী অভিযানে জব্দ করা গাঁজা চুরির অভিযোগে মামলা দায়ের হয়েছে।

মাদক নিয়ন্ত্রণ আইনের ১৯ এর খ ধারায় গতকাল মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) ২০২১ ইং মামলা দায়েরের পর জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। যাহার মামলা নং-৭৭। তিনি বিক্রির উদ্দেশে অভিযানে জব্দকৃত ওই গাঁজা সরিয়ে রেখে ছিলেন বলে অভিযোগের সত্যতা মিলে।

উপরোক্ত বিষয়ে পাবনা জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার পরিদর্শক জিন্নাত সরকার বাদী হয়ে সদর থানায় এ মামলা দায়ের করেন। গ্রেফতারকৃত এসআই ওসিম চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুহুদা থানার কেশবপুর গ্রামের মৃত আকবর আলীর ছেলে বলে জানা যায়।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, চলতি মাসের গত ২৪ এপ্রিল পাবনা সদর থানার তিনগাছা রাজাপুর গ্রামের চম্পা খাতুনের বাড়ি থেকে অভিযুক্ত এসআই ওসিম উদ্দিন ৫ কেজি গাঁজা’সহ এক আসামিকে আটক করে সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। ওই ঘটনার পর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মাসুদ আলম জানতে পারেন যে, এসআই ওসিম বিপুল পরিমাণ গাঁজা উদ্ধার করে মাত্র ৫ কেজি গাজা’সহ মামলার আসামিকে চালান করেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে গত ২৬শে এপ্রিল সোমবার পাবনা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রোকনুজ্জামান’সহ গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল অভিযুক্ত এসআই ওসিম উদ্দিনকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী পাবনা সদর থানা ভবনের ২য় তলার একটি কক্ষের ওয়াল কেবিনেট থেকে কয়েকটি লাল পলি ব্যাগে মোড়ানো অবস্থায় প্রায় ১২ কেজি গাঁজা উদ্ধার করতে সক্ষম হন।

এ সময় এসআই ওসিম গাঁজাগুলো বিক্রির উদ্দেশে নিজ হেফাজতে রেখেছিল বলে স্বীকার করেন। এই মাদক বিক্রি চক্রের সঙ্গে ওই থানার অজ্ঞাতনামা আরও সদস্যরা যুক্ত থাকতে পারে বলেও মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

পাবনা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নাসিম আহমেদ এই ঘটনায় মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মামলার পর আসামিকে মঙ্গলবার পাবনা আমলী আদালত-১ এর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মুহাম্মদ শামসুল আল আমিন এর আদালতে হাজির করলে বিচারক তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করার নির্দেশ দেন। তবে থানা হেফাজতে কিভাবে মাদক দ্রব্য লুকিয়ে রাখা হলো কিংবা এই চক্রের সঙ্গে কারা জড়িত এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা তদন্ত করছি। জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মাসুদ আলম গণমাধ্যম কর্মীদের জানান, পুলিশ সদস্যদের নিকট থেকে এমন ঘটনা অনাকাঙ্ক্ষিত ও অনভিপ্রেত। তবে ঘটনার পরপরই আমরা তদন্ত শুরু করেছি।

অভিযুক্ত এসআই ওসিমকে পাবনা সদর থানা থেকে পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করা হয়। তদন্তে প্রমাণ পাওয়ায় তার বিরুদ্ধে তাৎক্ষনিক নিয়মিত মামলা দায়েরের পর জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

একইসঙ্গে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তিনি আরও জানান, মাদকের সাথে প্রশাসনের যাঁহারায় জড়িত থাকুকনা কেন কাউকেই ছাড় দেওয়া হবেনা।

প্রিয় পাঠক আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর সরাসরি জানাতে ই-মেইল করুন নিম্নের ঠিকানায়  jamunaprotidin@gmail.com