যমুনা প্রতিদিন
ঢাকাসোমবার , ৩ মে ২০২১
  1. English
  2. অর্থ ও বাণিজ্য
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. খেলাধুলা
  6. গণমাধ্যম
  7. চাকরি
  8. ছবিঘর
  9. জাতীয়
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দেশজুড়ে
  13. ধর্ম
  14. নারী ও শিশু
  15. প্রবাসের কথা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাজশাহীর তেরখাদিয়ায় গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

লিয়াকত হোসেন,রাজশাহী
মে ৩, ২০২১ ৩:২৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রাজশাহীতে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। রোববার রাত দেড়টার দিকে নগরীর তেরোখাদিয়া সবজিপাড়া শান্তিবাগ (৫ নং গলি) এলাকার ভাড়াবাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত গৃহবধূর নাম কাজলী (২৮)। তার স্বামীর নাম মো: লিটন। কাজলী জেলার তানোর উপজেলার তালন্দ বাজার এলাকার মো. কালাম হোসেনের মেয়ে।

স্থানীয়রা জানান, নগরীর কোর্টস্টেশন মোল্লাপাড়া এলাকায় এক বাড়িতে ভাড়া থাকতেন নিহত কাজলী দম্পতি। এই বাড়িতে ভাড়া থাকা অবস্থায় বছর দুয়েক আগে একটি মাদক মামলায় কাজলী ও তার স্বামী লিটন জেলহাজতে যান। এক বছর আগে কাজলী জামিনে ছাড়া পেলেও তার স্বামী এখনো জেলেই রয়েছেন। এরপর কাজলীর পরোকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে শান্ত কুমার সাহা নামের এক (সনাতন ধর্মাম্বলী) যুবকের সাথে।

পরোকীয়া প্রেমের বিষয়টি গোপন রাখতে কাজলী তার ওই বাসা ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন। পরে কাজলীকে নিয়ে তেরোখাদিয়া সবজিপাড়া শান্তিবাগ (৫ নং গলি) এলাকার ফারুকের বাড়িতে পৃথকভাবে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করতে থাকেন কাজলী ও শান্ত কুমার সাহা। শান্তই প্রলোভন দিয়ে তাকে এই বাসায় নিয়ে আসেন বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে ময়নাতদন্ত ছাড়াই তড়িঘড়ি করে নিহতের লাশ দাফন করায় বিষয়টি রহস্যজনক বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

পরোকিয়া প্রেমিক শান্ত কুমার সাহা দাবি করেন, ঘুমের অতিরিক্ত ট্যাবলেট খেয়েছিলো কাজলী। ঘরের দরজা ভেঙ্গে দেখি মারা গেছে সে। এর বেশি কিছু আমি জানি না। এ ব্যাপারে তাৎক্ষণিক নিহতের পরিবারের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

নগরীর রাজপাড়া থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ব্যাপারে শান্ত কুমার সাহাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে। এছাড়া নিহতের বাবাকে থানায় ডাকা হয়েছে। তার সাথে কথা বলে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলেও জানান ওসি।

প্রিয় পাঠক আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর সরাসরি জানাতে ই-মেইল করুন নিম্নের ঠিকানায়  jamunaprotidin@gmail.com