1. jamunaprotidin@gmail.com : যমুনা প্রতিদিন : Nihal Khan
  2. info@jamunaprotidin.com : যমুনা প্রতিদিন :
ক্ষণজন্মা নায়ক সালমান শাহকে হারানোর ২৫ বছর আজ » Jamuna Protidin
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
৫ নং চারঘাট ইউনিয়নের বিভিন্ন বিদ্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে স্বাস্থ্যসুরক্ষা সামগ্রী ও ব্যাগ বিতরণ রূপগঞ্জে গুড়িয়ে দেয়া হলো বেলদী বাজারসহ অর্ধশতাধিক অবৈধ স্থাপনা শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব থেকে প্রাপ্ত ১০টি ফুটবল রাজশাহী কিশোর ফুটবল একাডেমিকে দিলেন রাসিক মেয়র সুন্দরবনের খরমা নদী থেকে জেলের ভাসমান লাশ উদ্ধার শরৎ হাসি বেলকুচিতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে ত্রান বিতরণ করলেন মেয়র সাজ্জাদুল রেজা আওয়ামীলীগ বাংলাদেশের রাজনীতিতে সবসময়ই অত্যন্ত শক্তিশালী ও গুরুত্বপূর্ণ দল -কৃষিমন্ত্রী মৌলভীবাজারে প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তা পেলেন ৪৯ সাংবাদিক গ্লোবাল বিজনেস সামিটে অংশ নিতে ২৭ সেপ্টেম্বর ১৬ দিনের সফরে দুবাই যাচ্ছেন নিরব জয়পুরহাটে বিশুদ্ধ খাবার দোকানের শুভ উদ্বোধন

ক্ষণজন্মা নায়ক সালমান শাহকে হারানোর ২৫ বছর আজ

যমুনা প্রতিদিন ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৫১ বার পঠিত

বাংলা চলচ্চিত্রের সবচেয়ে উজ্জ্বল ও ক্ষণজন্মা নায়কের নাম সালমান শাহ।আজ (৬ সেপ্টেম্বর) তার অকাল প্রস্থানের দিন। মাঝে পেরিয়ে গেলো ২৫ বছর।

১৯৯৬ সালের এই দিনে (৬ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ইস্কাটনের নিজ ফ্ল্যাটে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায় এই নায়কের লাশ। সে সময় তার বাবা প্রয়াত কমরউদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেন।

অপমৃত্যু নয়, বরং হত্যা করা হয়েছে তার ছেলেকে—এ প্রশ্ন তুলে তিনি ঢাকার সিএমএম আদালতে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। যার সুরাহা হয়নি আজও। ছেলের অকাল মৃত্যুর রহস্য উন্মোচনের জন্য এখনও আইনি লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন সালমান শাহের মা নীলা চৌধুরী।

সালমান শাহের মৃত্যুর ২৫ বছর পরও রহস্যের জাল এখনও ছিঁড়েনি। তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন, নাকি খুন হয়েছিলেন—এই প্রশ্নের সঠিক উত্তর আজও খুঁজে চলেছেন সালমান স্বজন-ভক্তরা। যদিও ২০২০ সালে পিবিআইর তদন্ত প্রতিবেদনে জানানো হয়, সালমান শাহের মৃত্যু হত্যা নয়, আত্মহত্যা।

৯০ দশকের শ্রেষ্ঠতম নায়ক সালমানের প্রকৃত নাম শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন। এ অভিনেতা মাত্র ২৭টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। যার বেশিরভাগই ছিল তুমুল জনপ্রিয় ও ব্যবসাসফল। মাত্র তিন বছরের অভিনয় জীবনে এতটা দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্র উপহার দেওয়ার ইতিহাস বিরল।

১৯৯৩ সালে সালমান অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত ‌‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ মুক্তি পায়। এরপর থেকেই বাংলা চলচ্চিত্রে ভরসার প্রতিশব্দ হয়ে ওঠেন এ নায়ক।

সালমান শাহ অভিনীত চলচ্চিত্রগুলো:

কেয়ামত থেকে কেয়ামত-১৯৯৩
তুমি আমার-১৯৯৪
অন্তরে অন্তরে-১৯৯৪
সুজন সখী-১৯৯৪
বিক্ষোভ-১৯৯৪
স্নেহ-১৯৯৪
প্রেমযুদ্ধ-১৯৯৫
কন্যাদান-১৯৯৫
দেনমোহর-১৯৯৫
স্বপ্নের ঠিকানা-১৯৯৫
আঞ্জুমান-১৯৯৫
মহামিলন-১৯৯৫
আশা ভালোবাসা-১৯৯৫
বিচার হবে-১৯৯৬
এই ঘর এই সংসার-১৯৯৬
প্রিয়জন-১৯৯৬
তোমাকে চাই-১৯৯৬
স্বপ্নের পৃথিবী-১৯৯৬
সত্যের মৃত্যু নেই-১৯৯৬
জীবন সংসার-১৯৯৬
মায়ের অধিকার-১৯৯৬
চাওয়া থেকে পাওয়া-১৯৯৬
প্রেম পিয়াসী-১৯৯৭
স্বপ্নের নায়ক-১৯৯৭
শুধু তুমি-১৯৯৭
আনন্দ অশ্রু-১৯৯৭

বুকের ভেতর আগুন-১৯৯৭।

সালমান শাহ’র আত্মহত্যার পেছনে পাঁচটি কারণ রয়েছে বলে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) তদন্তে উল্লেখ করা হয়েছে।এগুলো হলো:

১. সালমান শাহ ও চিত্রনায়িকা শাবনূরের অতিরিক্ত অন্তরঙ্গতা।

২. স্ত্রী সামিরার সঙ্গে দাম্পত্য কলহ।

৩. সালমান শাহ’র মাত্রাতিরিক্ত আবেগপ্রবণতা এবং একাধিকবার আত্মঘাতী হওয়া বা আত্মহত্যার চেষ্টা করা।

৪. মায়ের প্রতি অসীম ভালোবাসা, জটিল সম্পর্কের বেড়াজালে পড়ে পুঞ্জীভূত অভিমানে রূপ নেওয়া।

৫. সন্তান না হওয়ায় দাম্পত্য জীবনের অপূর্ণতা।

সালমান শাহ হত্যা মামলার গতিবিধি:

১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর মারা যান চিত্রনায়ক চৌধুরী মোহাম্মদ শাহরিয়ার (ইমন) ওরফে সালমান শাহ। সে সময় এ বিষয়ে অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেছিলেন তার বাবা প্রয়াত কমরউদ্দিন আহমদ চৌধুরী।

পরে ১৯৯৭ সালের ২৪ জুলাই ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগ করে মামলাটিকে হত্যা মামলায় রূপান্তরিত করার আবেদন জানান তিনি। অপমৃত্যুর মামলার সঙ্গে হত্যাকাণ্ডের অভিযোগের বিষয়টি একসঙ্গে তদন্ত করতে সিআইডিকে নির্দেশ দেন আদালত।

৩ নভেম্বর ১৯৯৭ সালে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয় সিআইডি। চূড়ান্ত প্রতিবেদনে সালমান শাহ’র মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলে উল্লেখ করা হয়। ২৫ নভেম্বর ঢাকার সিএমএম আদালতে এটি গৃহীত হয়। সিআইডি’র প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে তার বাবা কমরউদ্দিন আহমদ চৌধুরী রিভিশন মামলা দায়ের করেন।

২০০৩ সালের ১৯ মে মামলাটি বিচার বিভাগীয় তদন্তে পাঠায় আদালত। এরপর প্রায় ১৫ বছর মামলাটি সে তদন্তে ছিল।

২০১৪ সালের ৩ আগস্ট ঢাকার সিএমএম আদালতের বিচারক বিকাশ কুমার সাহার কাছে বিচার বিভাগীয় তদন্তের প্রতিবেদন দাখিল করেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ইমদাদুল হক। এ প্রতিবেদনে সালমান শাহ’র মৃত্যুকে অপমৃত্যু হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

২০১৪ সালের ২১ ডিসেম্বর এ চিত্রনায়কের মা নীলা চৌধুরী ছেলের মৃত্যুতে বিচার বিভাগীয় তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেন এবং ওই প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি দেবেন বলে আবেদন করেন।

২০১৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি নীলা চৌধুরী ঢাকা মহানগর হাকিম জাহাঙ্গীর হোসেনের আদালতে বিচার বিভাগীয় তদন্ত প্রতিবেদনের বিষয়ে নারাজির আবেদন দাখিল করেন। সে আবেদনে উল্লেখ করা হয়, আজিজ মোহাম্মদ ভাইসহ ১১ জন তার ছেলে সালমান শাহ’র হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকতে পারেন।

২০১৬ সালের ২১ আগস্ট ঢাকার বিশেষ জজ ৬-এর বিচারক ইমরুল কায়েশ রাষ্ট্রপক্ষের রিভিশনটি মঞ্জুর করেন এবং মামলাটি তদন্তের দায়িত্বে পায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। এরপরও নানা কারণে দফায় দফায় প্রতিবেদন প্রকাশের তারিখ পেছানো হয়। অবশেষে সেটি প্রকাশ হয় গত বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি।

সুত্র- বাংলা ট্রিবিউন

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরও সংবাদ







© All rights reserved © 2021 

এই সাইটে নিজম্ব সংবাদ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি।তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ,আলোকচিত্র ব্যবহার করা বেআইনি।

Theme Customized BY Sky Host BD