1. jamunaprotidin@gmail.com : যমুনা প্রতিদিন : Nihal Khan
  2. info@jamunaprotidin.com : যমুনা প্রতিদিন :
বাকেরগঞ্জ শ্যামপুর বিএম আলিয়া মাদ্রাসার কমিটি নিয়ে তদন্ত » Jamuna Protidin
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:১২ অপরাহ্ন

বাকেরগঞ্জ শ্যামপুর বিএম আলিয়া মাদ্রাসার কমিটি নিয়ে তদন্ত

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
  • প্রকাশের সময় শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১২৫ বার পঠিত

পশ্চিম শ্যামপুর বিএম আলিম মাদ্রাসার প্রশ্নবিদ্ধ কমিটি বাতিলের দাবিতে করা অভিযোগের ভিত্তিতে ২৩ সেপ্টেম্বর দূপুরে বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশে সরেজমিনে তদন্তে আসেন উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তা জনাব আকমল হোসেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন অভিযুক্ত কমিটির সভাপতি ও সদস্যবৃন্দ এবং প্রায় শতাধিক অভিভাবক ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ তদন্ত কালীন সময়ে কার্যনির্বাহী কমিটির অনেক সদস্যই তদন্ত কর্মকর্তার কাছে কমিটি গঠনের অনেক অনিয়মের কথা তুলে ধরেন এবং উপস্থিত অভিভাবক ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ একতরফা পকেট কমিটি বাতিল চেয়ে গণ স্বাক্ষরিত একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা জনাব আকমল হোসেনের কাছে।

এ বিষয়ে স্থানীয় হিতাকাংখী মোজাম্মেল হক জানান,ইতিপূর্বে মন্ত্রনালয় থেকে বেশ কিছু সুনির্দিষ্ট অভিযোগোর ভিত্তিতে তদন্ত হলে তদন্ত রিপোর্টে বেশ কিছু অনিয়মের সাথে ম্যনেজিং কমিটি গঠনের অনিয়ম সন্দেহাতীতভাবে প্রমানিত হয় সে তদন্ত রিপোর্টে মন্ত্রনালয়ের ওয়েব সাইডেও প্রকাশ করা হয়েছে যা সকলের কাছে পরিস্কার।

এসময় দাতা সদস্য ডাক্তার মোহাম্মদ আব্দুস সোবাহান মিয়া বলেন সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে সভাপতিকে কমিটি গঠনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে আসতে বলা হলেও প্রশ্নবিদ্ধ কমিটির সভাপতি জনাব আব্দুল আউয়াল হাওলাদার তার জামাতা সাবেক অধ্যক্ষের মনগড়া ডান হাতে বাম হাতে স্বাক্ষরিত দুই পাতার একটি রেজুলেশনের ফটোকপি ছাড়া কিছুই দেখাতে পারেননি তিনি।

এছাড়াও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক শিক্ষক ও কর্মচারী জানান যে প্রতিষ্ঠানের অনেক প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রতিষ্ঠানের না রেখে তিনি বাসায় নিয়ে রাখেন এ বিষয়ে জানতে চাইলেও তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি বলে জানান উপস্থিত অভিভাবক ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা তাই এই মন গড়া একতরফা পকেট কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়ে তদন্ত কালীন সময় উপস্থিত অভিভাবক ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ মাদ্রাসার সামনে বিক্ষোভ করেন।

তদন্তকারী কর্মকর্তা অভিযুক্ত কমিটির সভাপতির কাছে কমিটির প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখতে চাইলে সাবেক প্রধান শিক্ষক তার জামাতার মন গড়া ডান হাতে বাম হাতে স্বাক্ষরিত রেজুলেশনের ২ পাতার একটি ফটোকপি ছাড়া কিছুই দেখাতে পারেননি তিনি।তার কাছে কমিটির প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখতে চাইলে তিনি তদন্তকারী কর্মকর্তাকে বলেন কাগজপত্র আমার বাসায় আছে দেখতে চাইলে আমার বাসায় গেলে দেখাতে পারি।

এ বিষয়ে তদন্ত কর্মকর্তা বাকেরগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক অফিসার আকমল হোসেন জানান, মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশনা অনুযায়ী সরেজমিনে তদন্তে গিয়েছি অভিযোগের সত্যতা ও কমিটি গঠনে অনিয়ম পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরও সংবাদ







© All rights reserved © 2021 

এই সাইটে নিজম্ব সংবাদ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি।তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ,আলোকচিত্র ব্যবহার করা বেআইনি।

Theme Customized BY Sky Host BD