যমুনা প্রতিদিন
ঢাকাশনিবার , ৮ মে ২০২১
  1. English
  2. অর্থ ও বাণিজ্য
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. খেলাধুলা
  6. গণমাধ্যম
  7. চাকরি
  8. ছবিঘর
  9. জাতীয়
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দেশজুড়ে
  13. ধর্ম
  14. নারী ও শিশু
  15. প্রবাসের কথা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মান্দায় ঈদ বাজারে শেষ মুহূর্তে উপচে পড়া ভিড়

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
মে ৮, ২০২১ ৯:৩৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আপেল মাহমুদ:

নওগাঁর মান্দায় করোনা ঝুঁকি নিয়ে চলছে ঈদের কেনাকাটা, শেষ মুহূর্তে জমজমাট হয়ে উঠেছে উপজেলার বিভিন্ন বাজারের দোকান গুলো। তবে প্রতিনিয়ত ক্রেতাদের মাস্ক ও স্যানিটাইজার ব্যবহারে আরও সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে উপজেলা প্রশাসন,পুলিশ,ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে।

ধান কাটা প্রায় শেষ করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়েই মফস্বলের দোকান গুলোতে ঈদ কেনাকাটায় ভিড় করছেন ক্রেতারা। দোকান মালিকরা মাস্ক পড়ে দোকানে ঢোকার পরামর্শ দিলেও তা মানতে নারাজ অনেক ক্রেতা। নিষেধ করলেই হারাতে হচ্ছে ক্রেতা, ফলে কড়া ভাবে বলার উপায় ও নেই।

একদিকে সরকারের দেওয়া বিধিনিষেধ অন্যদিকে ঈদ কেনাকাটা। দুটোর সমন্বয় করতে গিয়েই তালগোল পাকিয়ে যাচ্ছে কাপড়ের দোকান,কসমেটিসসহ অন্য দোকান গুলো। তবে গতবছরের মত কোন দোকানেই চোখে পড়েনি হ্যান্ড স্যানিটাইজারের জোড়ালো ব্যবহার।

আবার স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদাসীনতা রয়েছে দোকানদার ও ক্রেতাদের মধ্যে। করোনা ভাইরাসকে গুরুত্ব না দিয়ে শিশুদের নিয়ে আসছেন অনেকে।

এ উপজেলার সতিহাট,দেলুয়াবাড়ি,সাবাই হাট, চৌবাড়িয়া বাজার ও প্রসাদপুর বাজারসহ বিভিন্ন এলাকার মার্কেট ঘুরে দেখা যায়, মার্কেটগুলোতে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড় । গাদাগাদি করে চলছে বেচাবিক্রি। আগত ক্রেতাদের বেশি ভাগ এসেছেন ঈদে কোনাকাটা করার জন্য।

করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি ও চলমান লকডাউনের কারণে আগের মতো ঈদ বাণিজ্য করতে পারছে না ব্যবসায়ীরা। গতবছরও করোনার কারণে ঈদ বাণিজ্যে ধস নেমেছিল। তবে এবার আগে মার্কেট চালু হওয়ার সুবাধে ধস নয়, কিছুটা বিপর্যয় থেকে রক্ষা পাবেন ব্যবসায়ীরা।

মার্কেটে ক্রেতা সমাগম বাড়ার পাশাপাশি বেচাবিক্রি বেড়ে যাওয়ায় আশাবাদী হয়ে উঠছেন ব্যবসায়ীরা। করোনা সংক্রমণের কারণে ইতোমধ্যে ব্যবসায়ীরা, বড় অঙ্কের লোকসান করেছেন। তবে ঈদকে সামনে রেখে দোকানপাট খুলে দেয়ায় বেচাকেনা শুরু হওয়াটাকে এ মুহূর্তের বড় অর্জন তাদের কাছে। গতবার অনেকে নিজ থেকেই করোনা আতঙ্কে ঘর থেকে বের হয়নি। তবে এবার পুরোটাই ব্যতিক্রম। করোনা ভাইরাসের কারণে মানুষের আয় উপার্জন অনেকটা কমে গেছে। এর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে বেচাবিক্রিতেও।

তবে ব্যবসায়ীরা আশাবাদী দোকান-পাট খোলা রাখতে পারলে ব্যবসা আবার ঘুরে দাঁড়াবে । জানা গেছে, ঈদকে সামনে রেখে এবার বিক্রেতারা আগেই প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিলেন। এ কারণে পাইকারি বাজার থেকে পোশাক সংগ্রহের কাজটি তারা রোজার আগেই করেছেন। তবে মার্কেটে গুলোতে নতুন পোশাকসহ কোন পণ্যের কোন সঙ্কট নেই।

ক্রেতা নাসিমা আক্তার বলেন, ‘ঈদ কেনাকাটার করার জন্যই মার্কেটে আসা হয়েছে। বিভিন্ন ডিজাইনের নতুন পোশাক পাওয়া যাচ্ছে মার্কেটে।’তবে মাস্ক না পরার কারণ জানতে চাইলে হেসে বলেন আমাদের করোনা হবেনা করোনা বড়লোকের।

দেলুয়াবাড়ি ও প্রসাদপুর বাজারের কয়েকজন কাপড়ের ব্যবসায়ীরা বলেন, ধান কাটা প্রায় শেষ এবং সামনে ঈদ এজন্য ‘হঠাৎ করেই ক্রেতারা কেনাকাটা বাড়িয়ে দিয়েছেন। এ কারণে তাদের বেচাবিক্রি ভাল হচ্ছে।’

মান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হালিম বলেন, ঈদকে সামনে রেখে ‘কেনাকাটায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে ব্যবসায়ীদেরকে বলা হয়েছে। তাছাড়া প্রতিনিয়ত বাজার গুলোতে উপজেলা প্রশাসনের তদারকি রয়েছে অনিয়ম পেলে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছি এবং বার বার তাদের সতর্ক করার কাজ অব্যহত রয়েছে।

প্রিয় পাঠক আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর সরাসরি জানাতে ই-মেইল করুন নিম্নের ঠিকানায়  jamunaprotidin@gmail.com