ঢাকামঙ্গলবার , ২৩ নভেম্বর ২০২১
  1. Entertainment
  2. অর্থ ও বাণিজ্য
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম ও জীবন
  6. খেলাধুলা
  7. গণমাধ্যম
  8. চাকরি
  9. ছবিঘর
  10. জাতীয়
  11. জেলার খবর
  12. তথ্যপ্রযুক্তি
  13. দেশজুড়ে
  14. নারী ও শিশু
  15. প্রচ্ছদ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ইলিশ মাছ বাংলাদেশের জাতীয় সম্পদ ও প্রতীক

যমুনা প্রতিদিন ডেস্ক:
নভেম্বর ২৩, ২০২১ ১১:৫৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ইলিশ বাংলাদেশের জাতীয় মাছ।এটি একটি সামুদ্রিক মাছ যা ডিম পাড়ার জন্য বাংলাদেশ ও পূর্ব ভারতের নদীতে আসে।ইলিশ বাঙালিদের মধ্যে খুবই জনপ্রিয় এবং এটি ভারতের পশ্চিমবঙ্গ,উড়িষ্যা,ত্রিপুরা এবং আসামের বিভিন্ন অঞ্চলে খুবই জনপ্রিয় মাছ।

সাইফ আল-ইসলাম নামের এক বাংলাদেশী জানান যে, পদ্মার ইলিশ বেশি সুস্বাদু।অন্য যেকোনো ইলিশের চেয়ে আমাদের চাঁদপুরের ইলিশের স্বাদ বেশি।তাই এই মাছের দামও বেশি।

চাঁদপুর শহরের বণিক সুমন খান জানান,“মৌসুম এলে আমাদের কাছে ৮০,১৬০, ২০০ টন ইলিশ মাছ আসে। যতক্ষণ পর্যন্ত আমরা এসব জিনিস বিক্রি করি বা ওজন দেই, ততক্ষণ চাহিদা অনুযায়ী দিতে পারি না।যদি ২০০ টনের বেশি মাছ আসে।এগুলো বিক্রি করা হবে।এখন মাছের চাহিদা এমন যে অনলাইনে চাহিদা অনুযায়ী অর্ডার দিতে পারি না,মাছের চাহিদা অনেক।

২০১৭ সালে,হিলসা মাছ বাংলাদেশে একটি ভৌগলিক নির্দেশক বা গ্লাইসেমিক পণ্য হিসাবে স্বীকৃত হয়েছিল। বাংলাদেশ বিশ্বের মোট ইলিশ মাছের শতকরা ৭৫ ভাগ এর বেশি এবং বাংলাদেশে উৎপাদিত মোট মাছের শতকরা ১২ ভাগ উৎপাদন করে।

এই মাছ স্বাদে ও গন্ধে চমৎকার এবং খাদ্যগুণেও সমৃদ্ধ; এতে রয়েছে উচ্চ মাত্রার কার্বোহাইড্রেট,চর্বি,ভিটামিন এবং খনিজ পদার্থের পাশাপাশি বিনামূল্যের ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড,অপরিহার্য অ্যামিনো অ্যাসিড,ক্যালসিয়াম, ফসফরাস,আয়রন এবং ভিটামিন এ, ডি এবং বি।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিট এর প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মুহাম্মদ আনিসুর রহমান জানান, ইলিশ আমাদের জাতীয় মাছ,ঐতিহ্যের প্রতীক।বাংলাদেশসহ ১১টিরও বেশি দেশে এই মাছ পাওয়া যায়।

পশ্চিমবঙ্গ,উড়িষ্যা,আসাম,ভারত ও মায়ানমারে এই মাছ পাওয়া যায়।এটি খুবই সুস্বাদু একটি মাছ যা খুবই জনপ্রিয়।এই মাছ খেলে অনেক রোগ নিরাময় হয়।শুধু অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডেই নয়,আমাদের দেশের দরিদ্রদের ওপরও এর ব্যাপক প্রভাব রয়েছে।আমাদের জীবিকার ক্ষেত্রে।এটি বাংলাদেশের ঐতিহ্য।এটিকে অন্য কেউ ছিনিয়ে নিতে পারবে না এই সত্যের স্বীকৃতিস্বরূপ, বাংলাদেশ সরকার ঘোষণা করেছে যে ইলিশ বিশ্বব্যাপী একটি ভৌগোলিক নির্দেশক হিসাবে স্বীকৃত হবে।বাংলাদেশ এবং ইলিশ হবে সমার্থক।

এই মাছে থাকা ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড এবং পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড শরীরের চর্বি এবং কোলেস্টেরল জমতে বাধা দেয় অর্থাৎ এটি হৃদরোগে ব্যথা উপশমকারী হিসেবে কাজ করে।তাই মানবদেহের প্রয়োজনীয় অ্যামাইনো অ্যাসিড যা তৈরি করতে পারে না।

ইলিশের শরীরে উৎপন্ন হয়।ইলিশ ফসফরাস, ক্যালসিয়াম,খনিজ পদার্থ এবং ভিটামিন এবং কার্বোহাইড্রেটের জন্য।এই হেলসার স্বাদ কোথা থেকে আসে? মিঠা পানিতে কিছু ফাইটোপ্ল্যাঙ্কটন এবং ডায়াটম গ্রুপের কিছু জুপ্ল্যাঙ্কটন থাকে।এই প্রিয় খাবারগুলি খাওয়া মাছকে তাদের শরীরে ওমেগা-৩-মুক্ত ফ্যাটি অ্যাসিড তৈরি করতে সাহায্য করে -তাদের আরও সুস্বাদু করে তোলে।

তাই সাগরের ইলিশ অর্থাৎ পদ্মা,ইলিশ মেঘনা নদীর মিষ্টি পানির স্বাদ অনেক বেশি ভালো লাগে।তাই আমরা ইলিশকে অনন্য স্বাদের মাছ বলি।

বর্তমানে বাংলাদেশের শতাধিক নদীতে ইলিশ পাওয়া যায়।পদ্মা ও মেঘনা অববাহিকার প্রধান নদী এবং উপনদী,মোহনা এবং বঙ্গোপসাগরের উপকূলীয় এলাকায়ও ইলিশ বিস্তৃত।

সংবাদ সূত্র: A24 News Agency

যেকোনো সংবাদ পাঠান এই ইমেইলে [email protected]