যমুনা প্রতিদিন
ঢাকাসোমবার , ১১ এপ্রিল ২০২২
  1. English
  2. অর্থ ও বাণিজ্য
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. খেলাধুলা
  6. গণমাধ্যম
  7. চাকরি
  8. ছবিঘর
  9. জাতীয়
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দেশজুড়ে
  13. ধর্ম
  14. নারী ও শিশু
  15. প্রবাসের কথা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মান্দায় টিসিবির পণ্য বিতরণে চেয়ারম্যানের অনিয়ম

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
এপ্রিল ১১, ২০২২ ৭:৫৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নওগাঁর মান্দায় “ফ্যামিলি কার্ডে” টিসিবির পণ্য বিতরণে ইউপি চেয়ারম্যান ইয়াছিন আলী প্রামানিকের বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতি ও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ইয়াছিন আলী উপজেলার ১০নং নুরুল্যাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

সরেজমিনে গিয়ে সোমবার দুপুরে (১১ এপ্রিল) টিসিবির ফ্যামিলি কার্ডের পণ্য বিতরনে স্বজনপ্রীতি ও অনিয়মের দৃশ্য দেখা গেছে। টিসিবির তালিকাভুক্ত কার্ডধারীরা পণ্য নিতে এসে নির্দিষ্ট সময়ের আগে পণ্য না পেয়ে ফিরে যান । চেয়ারম্যান ইয়াসির আলী তার পছন্দের লোকজনদের ডেকে এনে পরিচয় পত্রে সুপারিশ করে তার পছন্দের লোকজনের হাতে পণ্য তুলে দেন । এমনকি একটি পরিবার ৩ থেকে ৪টি প্যাকেট চেয়ারম্যানের সুপারিশে ক্রয় করেছে। পরে টিসিবির তালিকাভুক্ত সদস্যরা তাদের পণ্য নিতে এসে পড়েন চরম বিপাকে। টিসিবির পণ্য না পেয়ে সদস্যরা তোড়জোড় শুরু হলে তাদেরকে শান্ত রাখতে শুধুমাত্র একটি করে তেলের বোতল হাতে ধরিয়ে দেন। অনেক ইউপি সদস্য টাকা দিয়ে টিসিবির পণ্য মজুদ করে রাখতে দেখা গেছে। তাদেরকে জিজ্ঞাসা করলে বলেন আমার ওয়ার্ডের তালিকাভুক্ত সদস্য না আসতে পারায় আমি ক্রয় করে রেখেছি। তারা আসলে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে জানান।

বারিল্যা গ্রামের আতোয়ারা বেগম, গোয়াল মান্দা গ্রামের সাইদুর রহমান, নজরুল ইসলাম, নুরুল্যবাদ করাতি পাড়ার গ্রামের আব্দুর রশিদ ও বারিল্যা গ্রামের আলম কবিরাজসহ আরও অনেকে শুধু মাত্র একটি করে তেলের বোতল নিয়ে ফিরে যান। এছাড়াও টিসিবির পণ্য না পেয়ে ফিরে যাওয়া একাধিক কার্ডধারী ব্যক্তি জানান, এরা টিসিবির পণ্য নিয়ে বাণিজ্য করতে আমাদেরকে জানাইনি। মানুষ মুখে খবর পেয়ে এসে দুপুরে দেখি পণ্য সব বিক্রি করে ফেলেছে চেয়ারম্যান।

মহি ট্রেডার্সের টিসিবির পণ্য বিক্রি করতে আসা ব্যক্তি জানান, আমার কোন কথা না শুনে চেয়ারম্যান সুপারিশ করে পণ্য দিয়ে দিয়েছে। পরে তালিকাভুক্ত সদস্যরা এসে হট্টগোল শুরু করে। এ ব্যাপারে আমার কোন দোষ নেই।

নিয়ম অনুযায়ী ফ্যামিলি কার্ড এর আওতায় প্রতি সদস্যকে দুই লিটার সয়াবিন তেল,দুই কেজি চিনি, দুই কেজি মসুর ডাল, দুই কেজি ছোলা ৫ শত ৬০ টাকা মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

সঠিকভাবে বিতরণ হচ্ছে কিনা এ ব্যাপারে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ও ট্যাগ অফিসার সাজেদুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রোজা থেকে দাঁড়িয়ে বিতরণ করা সম্ভব না। তার পরেও আমার অধিদপ্তরের কাজ নয় এটি বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে নুরুল্যাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান ইয়াছিন আলী প্রামানিকের কাছে জানতে চাইলে তিনি তড়িঘড়ি করে রুমে তালা দিয়ে পরিষদ ত্যাগ করেন। এ কারণে তার মন্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে মান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু বাক্কার সিদ্দিক বলেন, বিষয়টি জানা নেই । খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

প্রিয় পাঠক আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর সরাসরি জানাতে ই-মেইল করুন নিম্নের ঠিকানায়  jamunaprotidin@gmail.com