যমুনা প্রতিদিন
ঢাকাবুধবার , ২৮ এপ্রিল ২০২১
  1. English
  2. অর্থ ও বাণিজ্য
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. খেলাধুলা
  6. গণমাধ্যম
  7. চাকরি
  8. ছবিঘর
  9. জাতীয়
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দেশজুড়ে
  13. ধর্ম
  14. নারী ও শিশু
  15. প্রবাসের কথা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ডিমলায় এতিম শিশুদের বাসার সামনে বেরিগেট, দেখার কেউ নাই

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
এপ্রিল ২৮, ২০২১ ৯:৩৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার খগা-খড়িবাড়ি ইউনিয়ন’র ৪ নং ওয়ার্ড টুনিরহাট বাজারের উত্তর বাড়ি এলাকায় এতিম জিয়ারুল (৩৫) ইসলাম’র বাড়ীর সামনে বাঁশের বেড়া দিয়ে পথ আটকে দেয়ার ঘটনা ঘটে।

গত(২৫-এপ্রিল) সাংবাদিক খবর পেয়ে সরেজমিনে গেলে দেখা যায় এতিম জিয়ারুল (৩৫) ইসলাম এর বাড়ীর সামনে বাঁশের বেড়া দিয়ে পথ আটকে দিয়েছেন জমির মালিক তার প্রতিবেশী আলাল উদ্দিন (৭০)।

এতিম জিয়ারুল ইসলাম ও তার মায়ের অভিযোগ প্রতিবেশী আলাল উদ্দিন (৭০) কোনো কারণ ছাড়াই আটকে দেয় তাদের বাইর হওয়ার পথ, ফলে ভোগান্তিতে পড়েছেন এই অসহায় পরিবারটি।

জিয়ারুল ইসলাম বলেন, আলাল উদ্দিন ‘র সাথে আমাদের কোনো দ্বন্দ্ব নেই, তবুও আমাদের বাড়ি থেকে বাইর হওয়ার রাস্তা বন্ধ করে দিল।
প্রতিবেশী আলাল উদ্দিন (৭০) এতিম জিয়ারুল ইসলাম এর পিতার কাছে ওয়াদা করেছিলেন যে কখন ও বাড়ি থেকে বাইর হওয়ার রাস্তা নিয়ে দ্বন্দ্ব করবেন না কিন্তু কথা রাখলেন না বলেও জানিয়েছেন এতিম জিয়ারুল ইসলাম ও তার মা মনোয়ারা বেওয়া (৫০)।এ বিষয়ে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান লিটন ইসলাম কে জানানো হয়েছিল কিন্তু কোনো সমাধান হয়নি।ডিমলা উপজেলা প্রশাসন এর সাহায্য আমাদের খুবই প্রয়োজন ।

অপরদিকে প্রতিবেশী আলাল উদ্দিন (৭০) এর কাছে রাস্তা বন্ধ করার কারণ জানতে চাইলে সাংবাদিক কে জানান, আমার জায়গা দিয়ে আমি রাস্তা দিবো না। তবে যথেষ্ঠ জায়গা থাকলেও তিনি বলেন আমার ৪ জন ছেলে, ছেলের স্ত্রী ও নাতী নাতনীদের জায়গার অভাব হবে বলে মনে করি।

এ বিষয়ে খগা-খড়িবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান লিটন ইসলাম’র কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিক কে জানান, এই বিষয়টি ওনাকে জানানো হয়েছে। সমস্যা সমাধান করার জন্য ইউপি মেম্বার কে দায়িত্ব দিয়েছি।

উল্লেখ্য যে গত মাসে গর্ভপাত অবস্থায় কন্যা শিশু কে জন্ম দিয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন জিয়ারুল’র স্ত্রী।

এছাড়াও বর্তমানে জিয়ারুল এর পরিবারে আছে বিধবা মা ও দুই ছেলে। রাস্তা থাকলে সঠিক সময়ে স্ত্রীকে হাসপাতালে নিলে হয়তো বেছে যেতো বলে ধারণা জিয়ারুল ইসলামের।প্রশাসন’র সাহায্য একান্তই প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন জিয়ারুল ইসলাম।

প্রিয় পাঠক আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর সরাসরি জানাতে ই-মেইল করুন নিম্নের ঠিকানায়  jamunaprotidin@gmail.com